in

ডিজিটাল মার্কেটিংয়ের মাধ্যমে সফল হওয়া এশিয়ার ছয়জন তরুণ উদ্যোক্তা

www.digitalmarketer.com

সময়ের সাথে সাথে বিশ্বব্যাপী তরুণ সব উদ্যোক্তাদের আদলে প্রযুক্তির সর্বোত্তম ব্যবহার এবং ডিজিটাল মার্কেটিংয়ের মাধ্যমে বদলে যাচ্ছে পৃথিবী। প্রতিনিয়তই তরুণ উদ্যোক্তারা চমৎকার সব আইডিয়া নিয়ে গড়ে তুলছে বিভিন্ন স্টার্টআপ।

কেউ বা মাঝপথে গিয়ে থমকে দাঁড়াচ্ছে কেউবা খুব দ্রুত সময়ে নিজেদেরকে এক অনন্য উচ্চতায় নিয়ে যাচ্ছে। আজকের আলোচনায় থাকছে তেমনি ছয়জন তরুণ উদ্যোক্তার গল্প, যারা ২০১৮ সালে ব্লুমবার্গ ও ফোর্বস কর্তৃক প্রকাশিত এশিয়ার তরুণ বিলিয়নিয়ারদের তালিকায় শীর্ষে ছিলেন।

৬. চ্যাং উই

৩৬ বছর বয়সী চ্যাং উই চীনের একটি স্বনামধন্য রাইড শেয়ারিং কোম্পানি ‘ডিডি’(DiDi) এর প্রতিষ্ঠাতা। বিশ্বের সবচেয়ে বড় এই মোবাইল ট্রান্সপোর্ট কোম্পানিটি ২০১৫ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। এরপর চ্যাং আলিবাবা সমর্থিত আরেকটি স্বনামধন্য কোম্পানি ‘কুয়িদি ড্যাচ’ এর সাথে তার কোম্পানি ‘ডিডি’কে একত্রে করে ‘ডিডি ড্যাচ’ প্রতিষ্ঠা করেন। এছাড়াও ২০১৬ সালে এই কোম্পানিটি আরেকটি রাইড শেয়ারিং কোম্পানি উবারের সাথে চুক্তিবদ্ধ হয়। বর্তমানে চীনের বিভিন্ন শহরে উবারের সেবামূলক কার্যক্রমসমূহ ডিডি ড্যাচ পরিচালনা করে থাকে। বর্তমানে ডিডি ড্যাচের আনুমানিক বাজার মূল্য ১.২ বিলিয়ন মার্কিন ডলার।

ডিডি ড্যাচের এই তরুণ প্রতিষ্ঠাতা ও সিইও বর্তমান চীনের কারিগরি শিল্পের অন্যতম প্রভাবশালী নেতা। এমনকি ২০১৭ সালে টাইম ম্যাগাজিনে প্রকাশিত প্রযুক্তি বিষয়ক ২০ জন প্রভাবশালী ব্যক্তির তালিকায় চ্যাং উই ছিলেন অন্যতম। যদিও তার কোম্পানি ডিডি বর্তমানে নিরাপত্তার মানদণ্ডে বেশ সমালোচনার সম্মুখীন হচ্ছে। কারণ, কোনো এক নারী রাইডার ডিডি ড্যাচ কোম্পানির একজন ড্রাইভারের হাতে মারা গিয়েছিলেন।

৫. লি উইউই

Source: 37wan.net

চীনের গেম ডেভেলপার ইন্ডাস্ট্রির সবচেয়ে পরিচিত মুখ হলেন লি উই-উই, তিনি লি ইয়াই-ফিই নামেও পরিচিত। ৪২ বছর বয়সী এই তরুণ উদ্যোক্তা ২০১১ সালে ‘থার্টিসেভেন গেমস’ (37Games) প্রতিষ্ঠিত করেন, যা বর্তমান সময়ের সবচেয়ে জনপ্রিয় গেম ডেভেলপার কোম্পানিগুলোর মধ্যে অন্যতম। এর আনুমানিক বাজার মূল্য ১.৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলার।

লি উই-উই, চ্যাং কং গ্রাজুয়েট স্কুল অব বিজনেসের প্রাক্তন ছাত্র ছিলেন এবং সেখান থেকে তিনি আলিবাবার ‘জ্যাক মা’ ডিগ্রি অর্জন করেন। পরে তিনি চীনের বিভিন্ন প্রযুক্তি কোম্পানিতে কাজ করেন। তার প্রথম কোম্পানি ‘R & D’ প্রতিষ্ঠিত করতে ব্যর্থ হন। সেখান থেকে শিক্ষা নিয়েই পরে ২০১১ সালে ‘37Games’ কোম্পানিটি প্রতিষ্ঠিত করেন লি উই-উই।

৪. বিজয় শেখর শর্মা

৪১ বছর বয়সী বিজয় শেখর শর্মা ভারতের তরুণ বিলিয়নিয়ারদের মধ্যে একজন। তিনি ২০১১ সালে পেটিএম (Paytm) প্রতিষ্ঠা করেন, যার দ্বারা ব্যবহারকারী মোবাইলের মাধ্যমে অর্থ আদান-প্রদান করতে পারে। এর বর্তমান আনুমানিক বাজার মূল্য ১.৭ বিলিয়ন মার্কিন ডলার।

বিজয় শেখর যখন কলেজে পড়তেন, তখনই তিনি কনটেন্ট ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম স্টার্টআপ এক্সএস (XS) প্রতিষ্ঠা করেন, যা তিনি ১৯৯৯ সালে বিক্রি করেছিলেন। এরপর তিনি Paytm প্রতিষ্ঠা করেন, যার বর্তমান নিবন্ধনকৃত ব্যবহারকারী রয়েছে ২৫০ মিলিয়ন এবং প্রতিদিন এর মাধ্যমে গড়ে ৭ মিলিয়ন ব্যবহারকারী অর্থ লেনদেন করে থাকে।

৩. ঝাং ইয়াইমিন

Source: scmp.com

২০১২ সালে চীনের সবচেয়ে বড় এবং দ্রুততম সময়ে প্রতিষ্ঠিত হওয়া ‘বাইটড্যান্স’ (ByteDance) কোম্পানিটির প্রতিষ্ঠাতা হলেন ৩৫ বছর বয়সী ঝাং ইয়াইমিন। এই কোম্পানির সুবাদে ২০১২ সালে Forbes কর্তৃক প্রকাশিত এশিয়ার সবচেয়ে তরুণ বিলিয়নিয়ারদের মধ্যে অন্যতম একজন ছিলেন ঝাং ইয়াইমিন। এবং বর্তমানে তার কোম্পানির আনুমানিক বাজার মূল্য ৪ বিলিয়ন মার্কিন ডলার।

কোম্পানিটির গুরুত্বপূর্ণ পণ্যগুলোর অন্যতম ছিল ‘Jinri Toutiao’ বা ‘Today’s Headlines’। যার দ্বারা কাস্টমাররা তাদের কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা দ্বারা ‘টিকটক’ অথবা চীনে ‘Douyin’ ব্যবহারের মাধ্যমে নৃত্য, কমেডি থেকে শুরু করে বিভিন্ন ধরনের ছোট ছোট ভিডিও ধারণ করে তা বন্ধুদের সাথে শেয়ার করতে পারে। বর্তমানে ‘ByteDance’ এর পণ্যগুলো জাপান, দক্ষিণ এশিয়া, উত্তর আমেরিকা, ইউরোপ এবং চীনসহ বিশ্বের ৪০টিরও বেশি দেশে ব্যবহার হয়ে থাকে।

২. ফ্রাঙ্ক ওয়াং

Source: Business Insider

ড্রোন শিল্পে প্রথম বিলিয়নিয়ার হয়ে অঠা কোম্পানিটি হলো ‘ডিজেআই’ (DJI)। বিশ্বব্যাপী বিনোদনমূলক ড্রোন প্রস্তুতকারক বৃহত্তর এই কোম্পানিটি শুধুমাত্র ২০১৭ সালেই ২.৭ বিলিয়ন মার্কিন ডলার আয় করে, যার বর্তমান আনুমানিক বাজার মূল্য ৯.১ বিলিয়ন মার্কিন ডলার।

স্বনামধন্য এই ড্রোন কোম্পানিটির প্রতিষ্ঠাতা ও সিইও হলেন ৩৮ বছর বয়সী তরুণ ফ্রাঙ্ক ওয়াং। তিনি তার শিক্ষাজীবনের জুনিয়র স্কুল থেকে উড়তে বেশ পছন্দ করতেন। এরপর ফ্রাঙ্ক ইলেকট্রিক ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে ‘হংকং ইউনিভার্সিটি অব সাইন্স এন্ড টেকনোলজি’ তে পড়ালেখা করেন। ২০০৬ সালের সর্বপ্রথম তার ড্রোন রুমেই একটি ড্রোন তৈরির মধ্য দিয়েই আজকের DJI এর যাত্রা শুরু হয়। তারপর ধীরে ধীরে তিনি DJI-কে বিশ্বের বৃহত্তম ড্রোন কোম্পানিতে পরিণত করেন। ২০১৪ সালে তৈরি করার ‘ফ্যান্টম’ ড্রোনটি ছিল DJI এর শ্রেষ্ঠতম এবং সর্বাধিক বিক্রিত একটি ড্রোন।

১. কোলিন হুয়াং

৩৯ বছর বয়সী কোলিন হুয়াং তার পড়ালেখা শেষ করে গুগলের সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ার হিসেবে যোগদান করেন। এরপর ২০০৬ সালের চীনের গুগল প্রতিষ্ঠার জন্য নিজ দেশে ফিরে আসেন। তবে ২০১৩ সালে তার কানে সংক্রমণের কারণে তিনি অবসর গ্রহণের সিদ্ধান্ত নেন। এরপর তিনি নিজ উদ্যোগে ডেভেলপ করেন PDD।

PDD অথাৎ PinDuoDuo (পিনডুওডুও) একটি ই-কমার্স অ্যাপ, যা কাস্টমারদের একত্র হতে সাহায্য করে। কোলিন হুয়াং ২০১৫ সালে এ অ্যাপটি ডেভেলপ করেন। এ অ্যাপটির সাহায্যে কাস্টমাররা বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়া যেমন- QQ, WeChat এর বন্ধুদের সাথে পণ্য সম্পর্কিত তথ্য শেয়ার করে একত্রে শপিং করতে পারে। যা কাস্টমারদের স্বল্পমূল্যে পণ্যের সেবা পেতে ভূমিকা পালন করে।

মূলত এ কারণেই PDD কাস্টমারদের থেকে ব্যাপক সাড়া পেতে শুরু করে। শুধুমাত্র ২০১৭ সালেই কোম্পানির আনুমানিক আয় ছিল ১.৪ বিলিয়ন মার্কিন ডলার। এবং বর্তমানে পুরো কোম্পানিটির আনুমানিক বাজার মূল্য ৯.৯ বিলিয়ন মার্কিন ডলার।

Featured Image: Forbes

Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Loading…

0

Comments

0 comments

একটি ই-কমার্স বিজনেস প্রতিষ্ঠিত করে তুলতে ৮টি গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ

সঠিক ইউআরএল (URL) নির্বাচন করবেন কীভাবে?