in

কেন শিখবেন ফটোশপ?

তথ্যপ্রযুক্তির এই মাহেন্দ্রক্ষণে উপার্জনের মাধ্যমের শেষ নেই। এখন তথ্যপ্রযুক্তিকে কাজে লাগিয়ে, ঘরে বসেই ভালো উপার্জন করা যায়। কিন্তু আমরা অনেকেই হয়তো গতানুগতিক ধারণার বাইরে গিয়ে চিন্তা করতে পারি না। তাই, এই কাজগুলোর খোঁজ আমরা নিই না কিংবা পাই না। আমাদের আজকের আয়োজনে আমরা কথা বলবো ফটোশপ নিয়ে।

ফটোশপ নামটি আমরা অনেকেই জানি।

বর্তমান সময়ে তুমুল ব্যবহৃত এবং জনপ্রিয় কিছুর নাম উঠলে প্রথমেই আসবে ফটোশপের নাম। এখন কথা হচ্ছে, কেন আমরা ফটোশপে মনোনিবেশ করবো? অথবা, কেন আমরা ফটোশপ শিখবো? এই প্রশ্নগুলোর উত্তর জানা যাবে নিচের আলোচনা থেকে। তবে চলুন, জেনে নেয়া যাক।

Source: HowToGeek.com

সৃজনশীলতা

পড়াশোনার বাইরে গিয়ে যে যত বেশি জানে, সে তত বেশি সৃজনশীলতার চর্চা করে। সৃজনশীলতার বিভিন্ন ক্ষেত্রের মধ্যে ডিজাইন একটি। ডিজাইন মানেই আসলে আপনার মাথার খেল বা সৃজনশীলতার। আপনার মাথায় সৃজনশীল উপাদান কত পরিমাণ আছে, তা আপনার করা ডিজাইনই বলে দেবে। আপনি এই সেক্টরে যত সৃজনশীলতা দেখাতে পারবেন, আপনার সৃজনশীল চিন্তা-ভাবনা আরও বেশি বাড়বে। এই ডিজাইনের আগাগোড়া কাজ কিন্তু ফটোশপের কল্যাণে করা সম্ভব হয়।

নির্দিষ্ট প্রজেক্ট

ছবি সংক্রান্ত এমন কোনো কাজ নেই, যা ফটোশপ করতে পারে না।  

ফটো এডিটিং, নিমন্ত্রণ কার্ড, বিজনেস কার্ড, পোস্টার, এবং আরো বিভিন্ন ধরনের গ্রাফিক্স ডিজাইনসহ বহুবিধ প্রজেক্ট ফটোশপে তৈরি করা যায়। ফটোশপে এমনকিছু সৃজনশীল অপশন আছে, যা আপনি ব্যবহার করে নিশ্চিতভাবে খুব দারুণ জিজাইন করতে পারেন, যা যে কাউকেই চমকে দিতে পারে।

পুনরুদ্ধার

ধরুন, আপনার ছোটবেলার একটি ছবি প্রায় নষ্ট হওয়া অবস্থা। এখন আপনি চাচ্ছেন ছবিটিকে ভালো করে পূর্বের অবস্থায় ফিরিয়ে নিতে। এর একমাত্র এবং বিশেষ সমাধানের নাম ফটোশপ।

ফটোশপে এমনকিছু অপশন আছে, যা ছবিকে পুনরুদ্ধার করতে সাহায্য করে।

যেমন- হিলিং ব্রাশ, ক্লোন স্ট্যাম্প, প্যাচ টুল এবং এর বাইরেও আরও বিভিন্ন টুল ব্যবহার করে আপনি আপনার পুরাতন স্মৃতিকে নতুন করে ফিরিয়ে নিয়ে আসতে  পারেন। যদি আপনি এই কাজটি করতে জানেন, তবে নিঃসন্দেহে আপনার প্রতি আপনার ক্লায়েন্ট সন্তুষ্ট থাকবেন এবং খুশি হবেন।  

টেক্সটের সঙ্গে গ্রাফিক্স

ফটোশপে আপনি টেক্সটের সঙ্গে মনোমুগ্ধকর গ্রাফিক্সও যোগ করতে পারবেন।

ফটোশপে স্ট্রোক, ড্রপ শ্যাডো, বেভেল এবং এমবুশ এবং অন্যান্য ইফেক্ট ইউজ করে লেখাকে সাজিয়ে নিতে পারেন। ছবির ক্ষেত্রে ব্রাইট, কন্ট্রাস্ট, এক্সপোজার এবং অন্যান্য এডজাস্টমেন্টগুলো একত্র করে একটি ছবিকে ভিন্ন মাত্রা দিতে পারেন।

আর্টওয়ার্ক

ফটোশপের এমন কিছু ব্রাশ আছে, যা দিয়ে আপনি খুব চমৎকার কাজ করতে পারবেন। ব্রাশগুলোর অধিকাংশই পাওয়া যাবে ওয়েবে। ওয়েব থেকে আপনি আপনার পছন্দসই ব্রাশ বেছে নিতে পারেন। এই ব্রাশগুলো ব্যবহার করে আপনি আপনার ছবি এবং লে আউটকে দিতে পারেন খুব চমৎকার ইফেক্ট। আপনি ফটোশপে প্রফেশনাল হতে চাইলে, ব্রাশ ব্যবহার করার কেরামতি আপনাকে জানতেই হবে।

ছবির রং পরিবর্তন

ফটোশপের সবচে’ বড় ম্যাজিকের নাম ছবির রং পরিবর্তন করা। ফটোশপে আপনি ইচ্ছে করলে খুব সহজ এবং সাবলীলভাবে যেকোনো ছবির রং পরিবর্তন করে নিতে পারেন।

Source: Brusheezy.com

ভুল সংশোধন

মানুষমাত্রই ভুল করে৷ আর ভুল করা মানেই সংশোধনের কাছে দ্বারস্থ হওয়া। আপনার ফটোগ্রাফিতে কোনো ধরনের ভুল হয়ে থাকলে, তা সংশোধনের জন্য আপনাকে দ্বারস্থ হতে হবে ফটোশপের কাছে।

ধরুন, আপনার তোলা ছবিটি ভালো দেখাচ্ছে না। সামান্য কিছু ভুলে ছবিটি তার সৌন্দর্য হারিয়েছে। এমতাবস্থায় আপনি চাইলে ফটোশপ দিয়ে এডাজাস্ট এবং কারেকশান করতে করতে পারেন।  ছবিতে আলোর কমতি, ডার্ক ফটোস এবং রেড আইসহ আরো অনেক কিছু দিয়ে আপনি আপনার তোলা ছবিটি এডজাস্ট করে করতে পারেন।

টি-শার্ট ডিজাইন

আধুনিকতার এই যুগে আমাদের তরুণেরা বরাবরই স্মার্ট। এই স্মার্টনেসের প্রকাশে অন্যতম অবদান রাখে টি-শার্ট। বিভিন্ন স্মার্ট ডিজাইনের টি-শার্টের এখন চাহিদাও বেশি। এই স্মার্ট ডিজাইনটি করে দিতে আপনার দিকে মুখিয়ে আছে ফটোশপ। এই ফটোশপ দিয়েই  আপনি একটি টি-শার্ট খুব দারুণভাবে ডিজাইন করে নিতে পারেন।

ফটোশপে থাকা ইফেক্টগুলোর কারনে টি-শার্ট ডিজাইনে খুব সুন্দর লুক আসে।

ছবিতে বিভিন্ন ইফেক্ট             

আপনি চাইলে ফটোশপের কল্যাণে একটি ছবির উপর কাঠ-কয়লা, জল রং এবং আরো অনেক ইফেক্ট  দিতে পারেন।

আপনার মন চাইলে ফিল্টার ব্যবহার করে একটি ছবিকে, ফটোকপি করা কাগজে নিয়ে আসতে পারেন। ফটোশপ আসলে একধরনের জাদুর বাক্স। এর ব্যবহারে একটি ছবি তার প্রাণ পুরোদমে ফিরে পায়।

Source: iphone Photography School

ওয়েব ডিজাইন

ফটোশপ দিয়ে কি ওয়েব ডিজাইন করা যায়? হ্যাঁ যায়। কীভাবে? এ ব্যাপারে প্রথম প্রশ্ন হচ্ছে, আপনি কি এমন একটিও ওয়েবসাইট দেখাতে পারবেন যার মধ্যে ছবি নেই? না, ছবি ছাড়া কোনো ওয়েবসাইটই পূর্ণতা পায় না।

যেখানে ছবির কথা আসছে, সেখানে অবশ্যই ফটোশপেও কাজ আছে।

বর্তমানে সময়ে ওয়েবসাইটের মূল ডিজাইন ও লে-আউট তৈরি করতে ফটোশপের সাহায্য নেয়া হয়, যাকে আমরা পিএসডি টেমপ্লেট হিসেবে জানি। একটি ওয়েবসাইটকে খুব দারুণভাবে আকর্ষণীয় করে তুলতে অবশ্যই এবং অবশ্যই আপনাকে ফটোশপের কাজ জানতেই হবে।

শেষ কথা হচ্ছে, গতানুগতিক বৃত্তের বাইরে আসুন। আফসোস আর বস্তাভর্তি দুঃখ নিয়ে বাঁচার কোনো মানে হয় না।

“কাজ নেই” কথাটি সম্পূর্ণ মিথ্যা কথা। আজই আমরা আপনাদের দেখালাম ফটোশপের কিছু গুরুত্বপূর্ণ ব্যাপারস্যাপার। আপনি চাইলে এই ফটোশপ দিয়েও ভালো টাকা উপার্জন করতে পারেন।   

তথ্যসূত্র

কেন আপনি ফটোশপ শিখবেন তার যুক্তিসংগত ১০টি কারণ

Featured Image: Photoshop Essentials

Written by Sonjoy Datta

Comments

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Loading…

0

Comments

0 comments

এইচটিএমএল এর আদ্যোপান্ত